সংবাদ প্রকাশের জেরে সাংবাদিক এম.এইচ.উজ্জলকে হত্যার হুমকি, থানায় জিডি


DBkhobor24 প্রকাশের সময় : মার্চ ৮, ২০২২, ৬:০১ PM /
সংবাদ প্রকাশের জেরে সাংবাদিক এম.এইচ.উজ্জলকে হত্যার হুমকি, থানায় জিডি

জয়নাল আবেদীন:

যশোর সদরের দেয়াড়া ইউনিয়নের মাটি ব্যবসায়ীদের বিরুদ্ধে পত্রিকায় সংবাদ প্রকাশের জেরে স্থানীয় দৈনিক গ্রামের কন্ঠ পত্রিকার স্টাফ রিপোর্টার ও স্বাধীন বার্তা২৪ এর সম্পাদক এম.এইচ.উজ্জলকে ফরিদপুর বাজার এলাকার মাটি ব্যবসায়ী হাবিবুর রহমান হাবি ও তার ছেলে রায়হান প্রকাশ্যে প্রাণ নাশের হুমকি দিয়েছেন।

এ ব্যাপারে মঙ্গলবার (৮মার্চ) সাংবাদিক এম.এইচ.উজ্জল বাদী হয়ে জীবনের নিরাপত্তা চেয়ে কোতয়ালী মডেল থানায় একটি সাধারণ ডায়েরি (জিডি) করেছেন। জিডি নম্বর- ৩৮৮।

স্থানীয়রা জানায়, সাংবাদিক এম.এইচ.উজ্জল সম্প্রতি ‘দেয়াড়ার মাটি ব্যবসায়ীদের নিয়ে দৈনিক গ্রামের কন্ঠে সংবাদ প্রকাশ করে’। প্রকাশিত সংবাদের জের ধরে তাকে অকথ্য ভাষায় গালাগালি করে এবং ফরিদপুর বাজারের উপরে লোক সম্মুখে কুপিয়ে হত্যা করে ফেলার হুমকি দেয়।

জানা যায়, মঙ্গলবার সাকালে একটি মাটি ভর্তি অবৈধ ট্রাকটর নিয়ে যাওয়ার পথে ফরিদপুর নতুন বাজারের মোড়ে গেলে রাস্তার ক্ষতি হচ্ছে এমন অযুহাতে স্থানীয়রা ট্রাকটরকে না যেতে দেওয়ার জন্য বাধা প্রদান করে। পরে পাশে বসে থাকা রায়হান ও হাবি ওখানে উস্থিত হয়ে ওই স্থানীয়দের সাথে ট্রাক যাওয়া নিয়ে গেনজাম ও বাক বিতন্ডা করতে থাকে এসময় সাংবাদিক উজ্জল সংবাদ প্রকাশের জন্য সেই ভিডিও ধারন করতে থাকে।

রায়হান ওই ভিডিও করতে দেখে সাংবাদিকে উপর ক্ষিপ্ত হয়ে উঠে তাকে অকথ্য ভাষায় গালিগালাজ করতে থাকে ও ভিডিও করা মুঠোফোনটি কেড়ে নিতে যায়। এসময় এসবের প্রতিবাদ করায় সাংবাদিক উজ্জলকে লোক সম্মুখে কুপিয়ে হত্যা করে ফেলার হুমকি দেয় এবং বলে এই ভিডিও বা নিউজ যদি ছাড়া হয় তাহলে তার পরে তোর ব্যবস্থা নেওয়া হবে।

এ বিষয়ে সাংবাদিক এম.এইচ.উজ্জল জানান, দেয়াড়া ইউনিয়নের মাটি ব্যবসা নিয়ে আমি স্থানীয় দৈনিক গ্রামের কন্ঠে সংবাদ প্রকাশ করি। তাছাড়া স্থানীয় আরও কিছু পত্রিকায়ও ওই সংবাদ প্রকাশ করে। তবে সকল নিউজের উপর আমার হাত আছে এমন অভিযোগ করে বিভিন্ন মারোফাত হুমকি দিতে থাকে এবং আজ সবার সামনে কুপিয়ে হত্যা করে ফেলা হবে বলে হুমকি দেয় রায়হান।

দেয়াড়ার দায়ীত্বে থাকা কোতয়ালী মডেল থানার এস আই মায়দুল জানান, এম.এইচ.উজ্জল একটি জিডি করেছেন। ঘটনার তদন্ত করে আইনগত ব্যবস্থা নেয়া হবে।