বেনাপোলে শ্রমিককে মারপিট: ৪ ঘন্টা বন্ধের পর বন্দরে লোড আনলোড সচল


DBkhobor24 প্রকাশের সময় : মার্চ ১৩, ২০২২, ৩:২৩ PM /
বেনাপোলে শ্রমিককে মারপিট: ৪ ঘন্টা বন্ধের পর বন্দরে লোড আনলোড সচল

জয়নাল আবেদীন, বেনাপোল।

চার ঘন্টা বন্ধ থাকার পর বেনাপোল বেনাপোল বন্দরে লোড আনলোড সচল করেছে বন্দর হ্যান্ডলিং শ্রমিকরা।

বেনাপোল পোর্ট থানার পুটখালী ইউপি চেয়ারম্যান কর্তৃক বেনাপোল বন্দর হ্যান্ডলিং শ্রমিক ইউনিয়নের (রেজি: নং-৯৯১) সাজেল নামে এক সর্দারকে মারপিটের অভিযোগে রোববার সকাল ৮টা থেকে বেনাপোল বন্দরে লোড আনলোডসহ সকল ধরনের কার্যক্রম বন্ধ করে দেয় হ্যান্ডলিং শ্রমিকরা।

এ ঘটনায় বেনাপোল পোর্ট থানার ওসি সুষ্ঠু বিচারের আশ্বাস দিলে দুপুর ১২টা থেকে কাজে যোগ দেন শ্রমিকরা। সকাল থেকে বন্দর এলাকায় শ্রমিকদের মধ্যে উত্তেজনা দেখা দিলে বন্দর এলাকায় পুলিশ মোতায়েন করা হয়।

বেনাপোল বন্দরের হ্যান্ডলিং শ্রমিক ইউনিয়নের সভাপতি রাজু আহম্মেদ জানান, সাজেল নামে আমাদের এক সর্দার শুক্রবার রাতে পুটখালী ইউনিয়নের রাজাপুর বাজারে চায়ের দোকানে বসেছিল।

এসময় পুটখালী ইউনিয়ন চেয়ারম্যান আবদুল গফফারের ছেলে ও তার সাথে থাকা লোকজন পাশের হাটখোলা বাজারে সাজেলকে ডেকে নিয়ে এলোপাতাড়ি মারপিট করে আহত করেছে। এ ঘটনার প্রতিবাদে শ্রমিকরা সকাল ৮টা থেকে বন্দরে লোড আনলোড কার্যক্রম বন্ধ রাখেন। এ ঘটনায় পোর্ট থানার ওসি সাহেব সুষ্ঠু বিচারের আশ্বাস দিলে তারা ১২ টার দিকে কাজে যোগ দেয়।

বেনাপোল পুটখালী ইউনিয়নের চেয়ারম্যান আবদুল গফ্ফার জানান, গত ইউনিয়ন নিবার্চনের আগে সাজেল আমার ছেলেকে মারপিট করে আহত করে। এরই জের ধরে শুক্রবার রাতে আমার ছেলে সাজেলকে বাজারে ডেকে চড় থাপ্পড় কিলঘুসি মারে। পরে আলোচনা করে বিষয়টি মিমাংসা করে দেয়া হয়। রাজনৈতিক ফয়সা হাসিলে শ্রমিকরা কাজ বন্ধ রেখেছে।

বেনাপোল পোর্ট থানার পরিদর্শক (তদন্ত) গোলাম রসুল জানান, সাজেলকে গফ্ফার চেয়ারম্যানের লোকজন মারপিট করায় বন্দরে হ্যান্ডলিং শ্রমিকরা কাজ বন্ধ করে রেখেছিল। এ ব্যাপারে শ্রমিকদের সাথে ওসির আলোচনা হয়েছে। অভিযোগ দিলে ব্যবস্থা নেয়া হবে এই আশ্বাসের পর শ্রমিকরা কাজে যোগ দেয়। বিষয়টি তদন্ত করে প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা গ্রহণ করা হবে বলে তিনি জানান।