নীলফামারীতে ১লক্ষ ৫৬হাজার ৪৭১ জন উপকারভোগী পাচ্ছেন টিসিবির পন্য


DBkhobor24 প্রকাশের সময় : মার্চ ১৯, ২০২২, ৯:০৪ PM /
নীলফামারীতে ১লক্ষ ৫৬হাজার ৪৭১ জন উপকারভোগী পাচ্ছেন টিসিবির পন্য

নীলফামারী প্রতিনিধি:

পবিত্র মাহে রমজান উপলক্ষে নিম্নবিত্ত মানুষকে অর্থনৈতিক সাশ্রয় দিতে সরকার টিসিবির মাধ্যমে ভর্তুকি মূল্যে সারাদেশের মত নীলফামারী জেলায় খাদ্যপণ্য বিক্রি শুরু হবে। আগামীকাল রবিবার (২০ মার্চ) সকাল ১০ টা থেকে প্রথম পর্বে টিসিবির উপকারভোগীদের মাঝে পন্য বিতরণ করা হবে। দুইটি পর্বে দেয়া হবে টিসিবির পন্য। জেলায় ১লক্ষ্য ৫৬হাজার ৪৭১ জন উপকারভোগীকে টিসিবির পন্যর আওতায় আনা হয়েছে।

ট্রেডিং কর্পোরেশন অব বাংলাদেশ (টিসিবি) ভর্তুকি মূল্যে ১৮ জন ডিলারের মাধ্যমে ৬ উপজেলার ও চারটি পৌরসভায় এসব খাদ্যে পন্য বিক্রি করবে। প্রথম পর্বে চিনি, মশুর ডাল ও সয়াবিন তেল দেয়া হবে। প্রতি উপকারভোগী পাবেন দুই কেজি করে ৫৫ টাকা কেজি দরে চিনি ও ৬৫ টাকা কেজি দরে মশুর ডাল এবং ১১০ টাকা কেজি দরে ২ লিটার সয়াবিন তেল। দ্বিতীয় পর্বে এই তিনটি পন্যর সাথে যুক্ত হবে ছোলা। ৫০ টাকা কেজি দরে বিক্রি হবে পন্যটি।

শনিবার (১৯ মার্চ) বিকাল ৪ঘটিকায় নীলফামারীর সরকারি লাইব্রেরীর ভবনের প্রেস ব্রিফিং এসব তথ্য জানান নীলফামারীর জেলা প্রশাসক খন্দকার ইয়াসির আরেফিন।

তিনি আরো জানান, নীলফামারীতে ১লক্ষ্য ৫৬হাজার ৪৭১ জন উপকারভোগীর মধ্যে নীলফামারী সদর উপজেলায় ৩৪ হাজার ১৯৬ জন, নীলফামারী পৌরসভায় ২হাজার ৯৩৮ জন, ডোমার উপজেলায় ২১হাজার ৩০৫ জন, ডিমলা উপজেলায় ২৫ হাজার ৯৫৭ জন, জলঢাকা উপজেলায় ২৭ হাজার ৭৫৬ জন, কিশোরগ্জ উপজেলায় ১৬হাজার ৯৫৪ জন এবং সৈয়দপুর উপজেলায় ১৬ হাজার ১০জন, ডোমার পৌরসভায় ১হাজার ৩৩৭জন, জলঢাকা পৌরসভায় ৩হাজার ৪০১জন, সৈয়দপুর পৌরসভায় ৬হাজার ৬১৭জন।

ইতিমধ্যে স্বচ্ছ পদ্ধতিতে তালিকা প্রণয়ন করে ফ্যামিলি কার্ড উপকারভোগীদের মধ্যে হস্তান্তর করা হয়েছে। যাতে কোনো রকম অসুবিধা ছাড়াই সুবিধাভোগীদের কাছে ভর্তুকির এসব পণ্য পৌঁছায়, তার জন্য জেলা প্রশাসনের পক্ষ থেকে সবকিছু করা হচ্ছে। কবে কোথায় কখন টিসিবির পণ্য সরবরাহ করা হবে তা ইতোমধ্যে জেলা ও উপজেলা প্রশাসন জানিয়ে প্রচারণা শুরু করেছেন।

ইউনিয়ন পর্যায়ে ওয়ার্ড মেম্বার ও পৌরসভায় কাউন্সিলররা সুবিধাভোগীদের তালিকা তৈরি করেছেন। এই তালিকা অনুযায়ী নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেদের উপস্থিতিতে প্যাকেট করছে জেলা প্রশাসন। প্যাকেট সম্পন্ন হওয়ার পর তা যাবে টিসিবি ডিলারদের হাতে। ডিলাররা জেলা প্রশাসন থেকে পাওয়া তালিকা অনুযায়ী প্যাকেট পৌঁছে দিবেন সুবিধাভোগীদের কাছে। সংশ্লিষ্ট উপজেলা নির্বাহী অফিসারগন ট্যাগ অফিসার ও ডিলারের মাধ্যমে পণ্য এবং প্যাকেট প্রেরণ করা হয়েছে ।

এছাড়া টিসিবির পন্য বিতরণের সময় জেলা প্রশাসনের নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেটগণ সার্বিক বিষয়ে তদারকি করবেন। প্রেস ব্রিফিং নীলফামারীর অতিরিক্ত জেলা প্রশাসক (সার্বিক) মোঃ আজাহারুল ইসলাম, সহকারী কমিশনার ও এক্সিকিউটিভ ম্যাজিস্ট্রেট ও নেজারত শাখা মোঃ রমিজ আলম, নীলফামারী প্রেস ক্লাবের সভাপতি তহমিন হক ববি সহ জেলার বিভিন্ন প্রিন্ট ও ইলেকট্রনিক মিডিয়ার কর্মীরা উপস্থিত ছিলেন।