ডোমারে ১ম ডোজের শেষ দিনে টিকাকেন্দ্র পরিদর্শনে স্বাস্থ্য অধিদপ্তরের এমওডিজি


DBkhobor24 প্রকাশের সময় : ফেব্রুয়ারী ২৬, ২০২২, ৭:৫৮ PM /
ডোমারে ১ম ডোজের শেষ দিনে টিকাকেন্দ্র পরিদর্শনে স্বাস্থ্য অধিদপ্তরের এমওডিজি

মো:রিমন চৌধুরী, নীলফামারী প্রতিনিধি:

প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার উদ্যোগে “এক দিনে ১ কোটি টিকা” প্রদানের লক্ষ্যমাত্রা অর্জনে নীলফামারী ডোমার উপজেলায় ভ্রাম্যমান টিকাদান কর্মসূচী ও কেন্দ্রে কেন্দ্রে টিকা প্রদানের উদ্বোধন করা হয়েছে।

শনিবার (২৬ ফেব্রুয়ারি) সকালে উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্স চত্ত¡রে ভ্রাম্যমান টিকাদান কর্মসূচীর উদ্বোধন করেন প্রধান অতিথি স্বাস্থ্য অধিদপ্তরের এমওডিজি ডাঃ মোস্তফা মঈন উদ্দীন। এসময় উপজেলা স্বাস্থ্য ও প:প: কর্মকর্তা ডা: রায়হান বারী, স্বাস্থ্য পরিদর্শক ইনচার্জ বেলাল উদ্দিন উপস্থিত ছিলেন। উদ্বোধন শেষে প্রধান অতিথি উপজেলার ১০টি ইউনিয়ন ও একটি পৌরসভার কেন্দ্র গুলো পরিদর্শন করেন।

উপজেলার বিভিন্ন টিকাদান কেন্দ্র ঘুরে দেখাযায়, ব্যাপক উৎসাহ উর্দ্দীপনায় মানুষ করোনার ভ্যাকসিন ১ম ডোজ,২য় ডোজ ও ৩য় ডোজ(বুস্টার) গ্রহন করছেন। করোনা ভ্যাক্সিন’র প্রথম ডোজ গ্রহনের শেষ তারিখ হওয়ায় সকাল থেকে টিকাদান কেন্দ্রগুলোতে ছিলো উপচেপড়া ভীড়।

উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্স সুত্রে জানাযায়, উপজেলার ১০টি ইউনিয়ন ও একটি পৌর সভায় ৩২টি অস্থায়ী কেন্দ্র ও উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে একটি স্থায়ী কেন্দ্রে সকাল থেকে একযোগে টিকা প্রদান কার্যক্রম শুরু করা হয়। এছাড়াও পিক্যাপ ভ্যানযোগে ভ্রাম্যমাণ ভাবে হাট-বাজার,মোড়ে মোড়ে ও মহাসড়কের বিভিন্ন পয়েন্টে করোনা ভ্যাক্সিন দেয়া হচ্ছে।

উপজেলা স্বাস্থ্য ও পরিবার পরিকল্পনা কর্মকর্তা ডা. রায়হান বারী জানান,উপজেলার সকল ইউপি চেয়ারম্যান ও পৌর মেয়রের আন্তরিক সহযোগীতায় স্বাস্থ্য বিভাগের সকল কর্মকর্তা কর্মচারীগণ টিকাদান কর্মসূচীতে অংশ গ্রহন করেছে। উপজেলার সকল নাগরিকদের করোনা ভ্যাক্সিনের প্রথম ডোজ নিশ্চিত করতে প্রচার প্রচারনার মাধ্যমে আজকের উক্ত কর্মসূচী গ্রহন করা হয়েছে। ইতিমধ্যেই মোট জনসংখ্যার ৯০ শতাংশ প্রথম ডোজ টিকা দেওয়া হয়েছে। আজকে প্রথম ডোজের অবশিষ্ট ১০শতাংশ টিকা দেওয়ার টার্গেট নেওয়া হয়।

এছাড়াও দ্বিতীয় ডোজ ১লক্ষ ১৪হাজার ৮শত জন,তৃতীয় ডোজ ৬ হাজার ৮৯৬ জন ও ১২ থেকে ১৮ বছর বয়সী শিক্ষার্থীদের ফাইজার ও সিনোভেক্স ২৪ হাজার প্রথম ডোজ, ৯হাজার ৩৪৩জনকে দ্বিতীয় ডোজ টিকা দেওয়া হয়েছে।