টঙ্গীতে অপহরণ হওয়া শিশু উদ্ধার, দুই অপহরণকারী গ্রেফতার


DBkhobor24 প্রকাশের সময় : মার্চ ৩, ২০২২, ৭:৫২ PM /
টঙ্গীতে অপহরণ হওয়া শিশু উদ্ধার, দুই অপহরণকারী গ্রেফতার

সেলিম মাহমুদ, গাজীপুর।

গাজীপুর টঙ্গী সাতাইশ এলাকার বাছির উদ্দিনের বাড়ির ভাড়াটিয়া মোঃ নুর ইসলাম এর ৬ বছরের শিশু ছেলে মোঃ সোহান এর অপহরণকারীদের টঙ্গী পশ্চিম থানা পুলিশ আটক করেছে।

জানা যায়, গত ১মার্চ দুপুর ১১.৩০ ঘটিকার সময় মােঃ সােহান (০৬) বাসার সামনে খেলাধুলা করছিল। সােহানের মা নাসিমা আক্তার বাসায় রান্নায় কাজে ব্যস্ত থাকার সুযােগ বুঝে পূর্বপরিকল্পনা অনুযায়ী সকলের অজান্তে দুপুর অনুমান ১২.০০ ঘটিকার দিকে বাছির উদ্দিন সরকারের বাড়ির ভাড়াটিয়া আসামী ১। মােঃ সােহেল (২০), পিতা-ইয়াজউদ্দিন মাতা-সরুফা বেগম, জেলা-শেরপুর ও ভাদাম এলাকার ইয়াসিন মােল্লার বাড়ির ভাড়াটিয়া আসামি ২। মােঃ ফারুক (২৭), পিতা-মােঃ আক্কাস মিয়া, মাতা-মােসাঃ রওশান আরা, কলমাকান্দা, জেলা-নেত্রকোনা।

সোহেল ও ফারুক মিলে শিশু সােহান (৬) কে অপহরণ করে অজ্ঞাত স্থানে নিয়ে যায়। আসামী সােহেলের মােবাইল নাম্বার হইতে একইদিনে দুপুর অনুমান ১২.৩০ ঘটিকার সময় আসামী ফারুক ভিকটিমের বাবার প্রতিবেশি মোক্তার হােসেনের মােবাইলে ফোন করে মুক্তিপন হিসেবে ১ লক্ষ টাকা দাবি করে। যদি টাকা না পায় তাহলে আসামীরা ভিকটিমকে প্রানে মেরে ফেলার হুমকিও দেয়। ভিকটিমের বাবার প্রতিবেশি মােক্তার তাৎক্ষণিক ভিকটিমের বাবা নুর ইসলামকে অপহরনের বিষয়টি অবহিত করলে এই ঘটনায় অপহৃতের বাবা দ্রুত টঙ্গী পশ্চিম থানাকে জানায়।

টঙ্গী পশ্চিম থানা অফিসার ইনচার্জ মোঃ শাহ আলম বিষয়টি পুলিশ কমিশনার কে জানান, ভিকটিমের বাবার জবানবন্দি পর্যালােচনা এবং তথ্য প্রযুক্তি বিশ্লেষন করে অপহৃত শিশু মােঃ সােহানকে টঙ্গী পশ্চিম থানাধীন ভারাল বালুর মাঠ থেকে গত ০২/০৩/২০২২খ্রিঃ তারিখ সন্ধ্যা ০৬.০০ ঘটিকায় সময় উদ্ধার করা হয়। আসামীদের মােবাইল নাম্বার ট্র্যাক করে সােহেল (২০)কে ডিএমপি তেজগাঁও থানাধীন ফার্মগেইট এলাকা থেকে এবং আসামী সােহেলের তথ্য অনুযায়ী তার সহযােগী আসামী ফারুক (২৭) কে টঙ্গী পশ্চিম থানাধীন ভাদাম এলাকা হইতে আটক করা হয়েছে।

জিজ্ঞাসাবাদে আসামীরা পূর্বপরিকল্পিতভাবে ভিকটিম শিশু সােহান (০৬ কে অপহরণ করে ও মোবাইলে এক লক্ষ টাকা মুক্তিপণ দাবি করেছে বলে পুলিশের নিকট স্বীকার করে।

আসামীদের বিরুদ্ধে টঙ্গী পশ্চিম থানায় মামলা রুজু করা হইয়াছে। এবিষয়ে টঙ্গী জোনের সহকারি পুলিশ কমিশনার পিযুষ কুমার দে ঘটনার সত্যতা নিশ্চিত করেন।