অর্থ আত্মসাৎ ও অসৌজন্যমূলক আচরণের অভিযোগে অধ্যক্ষকে দায়িত্ব থেকে অব্যাহতি


DBkhobor24 প্রকাশের সময় : এপ্রিল ৭, ২০২২, ৯:২৭ PM /
অর্থ আত্মসাৎ ও অসৌজন্যমূলক আচরণের অভিযোগে অধ্যক্ষকে দায়িত্ব থেকে অব্যাহতি

আতাউর শাহ্, নওগাঁ প্রতিনিধিঃ

নওগাঁর রাণীনগর মহিলা কলেজের অধ্যক্ষ মিরাজুল ইসলামকে বিভিন্ন দুর্নীতির অভিযোগে অধ্যক্ষের দায়িত্ব থেকে অব্যাহতি প্রদান করা হয়েছে।বৃহস্পতিবার উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা ও কলেজের সভাপতি সুশান্ত কুমার মাহাতো স্বাক্ষরিত এক চিঠির মাধ্যমে এবিষয়টি জানা গেছে এবং ওই কলেজের হিসাব বিজ্ঞান বিভাগের সহকারি অধ্যাপক মো. ফরহাদ হোসেনকে অধ্যক্ষের দায়িত্বভার প্রদান করা হয়েছে।

অব্যাহতি পত্র সূত্রে জানা যায়, অধ্যক্ষ মিরাজুল ইসলাম কলেজের শিক্ষক কর্মচারীদের সাথে অসৌজন্যমূলক আচরন করাসহ বিভিন্ন কর্মকান্ড নিয়ম বহির্ভূতভাবে করে আসছিলেন। এই সব কর্মকান্ডের জন্য অধ্যক্ষকে ইতিপূর্বে একাধিকবার কারণ দর্শানোর নোটিশের জবাবে তাকে ক্ষমা প্রদর্শন করা হয়। এরপরও অধ্যক্ষ কলেজের হিসাব বিজ্ঞান বিভাগের প্রভাষক সুজিত চন্দ্র সাহা ও ব্যবস্থাপনা বিভাগের প্রভাষক সনজীব কুমার সাহার বেতন ভাতা করে দেওয়ার নামে তাদের কাছ থেকে প্রথমে ১০লক্ষ টাকা উৎকচ নেন এবং পরবর্তিতে আরো ৬লক্ষ টাকা প্রদানের জন্য বার বার চাপ প্রয়োগ করে আসছেন। কিন্তু এখন পর্যন্ত ওই দুই শিক্ষকের কোন বেতন-ভাতা হয়নি।

এছাড়াও গত বছরের মার্চ মাসের ২১তারিখ থেকে ২২সালের মার্চের ৩১তারিখ পর্যন্ত কলেজের আয় হয়েছে ১৪লক্ষ ৪৭হাজার ৯শত ৫২টাকা যার মধ্যে অধ্যক্ষ বিভিন্ন সময়ে কলেজের হিসাব নম্বরে ৭লক্ষ ৬৫হাজার ৯শত ৫০টাকা জমা দিয়েছেন। অবশিষ্ট ৬লক্ষ ৮২হাজার ২টাকা কলেজের হিসেবে জমা না দিয়ে আত্মসাৎ করেছেন।

কলেজের সভাপতি ও উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা সুশান্ত কুমার মাহাতো বলেন, তার এসব কর্মকান্ড চাকুরী বিধির পরিপন্থি হওয়ার কারণে অধ্যক্ষ এবং ওই কলেজের হিসাব রক্ষন কর্মকর্তা সুমন চন্দ্রকে গত ৩১মার্চ কারণ দর্শানোর নোটিশ প্রদান করি। নোটিশের বিপরীতে অধ্যক্ষ মিরাজুল ইসলাম যে জবাব প্রদান করেছেন তা সন্তোষজনক নয়। তাই কলেজের শান্তিপূর্ণ পরিবেশ ও শৃঙ্খলা বজায় রাখতে বৃহস্পতিবার এক চিঠির মাধ্যমে অধ্যক্ষ মিরাজুল ইসলামকে তার পদ থেকে অব্যাহতি প্রদান করে হিসাব বিজ্ঞান বিভাগের সহকারি অধ্যাপক মো. ফরহাদ হোসেনকে ওই পদে নিযুক্ত করেছি।